Sorry, you need to enable JavaScript to visit this website.
Search
Not a member? Register here
Share this Article
X
Getting Smart at Eating during Pregnancy

গর্ভাবস্থায় খাওয়ার ব্যাপারে দক্ষ হোন

(0 reviews)

এখানে কিছু প্রয়োজনীয় পরামর্শ দেওয়া হল যা গর্ভাবস্থায় সঠিকভাবে খেতে আপনাকে সাহায্য করবে।

Monday, December 11th, 2017

আপনার দিন শুরু করুন সদ্য কাটা মরশুমি ফল বা এক গ্লাস ফলের রস দিয়ে। সেই এককাপ কফি বা চা-কে বিদায় জানান যার মধ্যে ক্যাফেইন রয়েছে এবং যার কোনো পুষ্টিগত মূল্য নেই।   
আমন্ড, আখরোটের মতো কিছু বাদাম দিয়েও দিনটি দারুনভাবে শুরু করা যেতে পারে।
যদি সেই এক কাপ চা বা কফির লোভ সংবরণ করতে আপনার খুব কষ্ট হয়, তাহলে অন্তত খাবারের আগে, খাওয়ার সময় বা খাবারের পরে সেটিকে এড়িয়ে চলুন।  .

আগে থেকে আপনার খাদ্যাভ্যাসের পরিকল্পনা করুন এবং সেইসমস্ত স্বাস্থ্যকর খাবার মজুত করুন যা গর্ভাবস্থায় খাওয়ার ব্যাপারে আপনাকে দক্ষ হতে সাহায্য করবে।

বাড়িতে তৈরী একটি সুষম প্রাতঃরাশ গ্রহণ করুন যেমন পোহা, থালিপিঠ ,পরোটা, দই, ইডলি সম্বর, ধোসা চাটনি, সবজি উপমা যেগুলি পুষ্টির একটি সমৃদ্ধ উপাদান।
প্রাতঃরাশের খাদ্যশস্যগুলি নিউট্রিয়েন্টস দ্বারা সমৃদ্ধ, যদিও এটি ভুললে চলবে না যে সেগুলি অ্যাডিটিভ, সুগন্ধ ও কৃত্রিম রঙ দ্বারা তৈরী করা প্রক্রিয়াজাত খাবার।
যেহেতু আপনাকে অল্প পরিমাণে খাবার বারবার খেতে হবে, তাই আপনার ডায়েটের পরিকল্পনায় সকালের মাঝখানে আর বিকেলের মাঝখানে একটি করে খাবারের সময় যোগ করুন। বাটার মিল্ক, লস্যি, একমুঠো চীনাবাদাম /রোস্ট করা মাখানা, অঙ্কুর, মুল খাবারের মাঝখানে খাওযার জন্য দারুন বিকল্প। 
একটি পুষ্টিকর দুপুরের ও রাতের খাবারের জন্য, গোটা শস্য থেকে বেছে নিন যেমন আটা, জোয়ার বাজরা, চাল, রাগী, রাজগীরা তার সাথে সাথে শাক সবজী এবং একটি প্রোটিনের উৎস যেমন ডাল, কলাই, ডিম, মাছ বা মুরগীর মাংস। 
অঙ্কুর বের করা, ও গাঁজানোর মতো পদ্ধতিগুলি ব্যবহার করুন যাতে খাবারের হজম ক্ষমতা বেড়ে যায় এবং ভিটামিন বি-কমপ্লেক্স ও ভিটামিন সি বেড়ে যায়।  
খাবারের মাঝখানে দীর্ঘ সময়ের বিরতি, অতিরিক্ত খাওয়া দাওয়া করা বা মদ্যপান করা এড়িয়ে চলুন।
মাছ, মুরগীর মাংস, ডিম সহ গোটা শস্য, ডাল, কলাই, দুধ ও দুধের সামগ্রী, মরশুমি ফল ও সবজির মতো নানা ধরনের খাবার খান যা আপনাকে ভালো মানের প্রোটিন প্রদান করে। যদি আপনি একজন নিরামিষাসী হন, তাহলে  শস্য, ডাল ও দুধের সামগ্রী সারাদিন  মিলিয়ে মিশিয়ে নিলে বা খাবারের তালিকায় রাখলে সেটিও আপনাকে ভালো মানের প্রোটিন পেতে সাহায্য করবে।

আরও প্রোটিন পাওয়ার জন্য কিছু অঙ্কুরিত মুগডাল/সিদ্ধ করা বিনস্‌/টুকরো করা পনিরের  আপনার সবজির স্যালাডের মধ্যে ছড়িয়ে দিন 
কোষ্ঠ্যকাঠিণ্য প্রতিরোধ করার জন্য ফাইবার-সমৃদ্ধ খাবার খান।
দুধ ও দুগ্ধজাত সামগ্রী অন্তর্ভুক্ত করুন, কারণ তারা এমন আকারে ক্যালসিয়াম প্রদান করে যা আপনার শরীরে সহজেই পাওয়া যায়। 
টক জাতীয় খাবার, অঙ্কুরিত শুঁটি ও গাঁজানো জাতীয় খাবার খাদ্যতালিকায় অন্তর্ভুক্ত করার মাধ্যমে আপনি এটি নিশ্চিত করতে পারেন যে আপনার শরীর খাদ্যতালিকা থেকে বেশিরভাগ আয়রণ শোষন করতে পারছে।
অতিরিক্ত খাওয়া এড়িয়ে চলুন। আচার, সস ইত্যাদির মতো খাবারে লুকোনো নুনের দিকে খেয়াল রাখবেন।
প্রতিদিন 8-12 গ্লাস জল পান করার মাধ্যমে শরীরের আর্দ্রতা বজায় রাখুন।
এমন কিছু বেঠিক কাজ থেকে নিজেকে দূরে সরিয়ে রাখুন যা আপনাকে পুষ্টিকর খাবার খাওয়া থেকে আটকায়।

English | Tamil | Hindi | Telugu | Bengali | Marathi

Read more

Join My First 1000 Days Club

It all starts here. Expert nutrition advice for you and your baby along the first 1000 days.

  • Learn about nutrition at your own paceLearn about nutrition at your own pace
  • toolTry our tailored practical tools
  • Enjoy member only benefits and offersEnjoy member only benefits

Let's start this!

Related Content
Article Reviews

0 reviews

Still haven't found
what you are looking for?

Try our new smart question engine. We'll always have something for you.