Sorry, you need to enable JavaScript to visit this website.
Search
Not a member? Register here
Share this Article
X
The do’s and don’ts of travelling during pregnancy

গর্ভাবস্থায় ভ্রমণ করার সময় কি করবেন আর কি করবেন না

(0 reviews)

গর্ভাবস্থায় ভ্রমণের পরামর্শ হয়তো নাও দেওয়া হতে পারে, কারণ এই গুরুত্বপূর্ণ সময়ে ভ্রমণে যাওয়া সবসময়েই বিপদ ডেকে আনতে পারে।

Monday, December 11th, 2017

যতক্ষণ পর্যন্ত আপনার গর্ভাবস্থা কোনো জটিলতা বা উদ্বেগ মুক্ত, ততক্ষণ পর্যন্ত আপনার গর্ভাবস্থার প্রারম্ভিক পর্যায়ে বেশিরভাগ সময় ঘুরে বেড়ানো নিরাপদ। তা সত্ত্বেও, আপনার নিজের সুরক্ষার জন্য, চিকিৎসকেরা এটি সুপারিশ করেন যে অনিবার্য পরিস্থিতিগুলি ছাড়া 30 সপ্তাহের পর ভ্রমণ করা এড়িয়ে যাওয়া ভালো।

সুরক্ষিত ও সুরক্ষিত নয় এমন পর্বগুলি

প্রথম ত্রৈমাসিকে  সময় ভ্রমণ করা এড়িয়ে চলুন প্রথম ত্রৈমাসিকে সময় ভ্রমণ করা সুপারিশ করা হয় না। যেহেতু এই পর্যায়ে ভ্রূণটি নিজেই মায়ের গর্ভাশয়ের সাথে সংযুক্ত থাকে তাই এই সময় গর্ভপাত বা জটিলতাগুলির সুযোগ বেশি থাকে। 

দ্বিতীয় ত্রৈমাসিক তার চেয়ে নিরাপদ যদিও, আপনি আপনার 13তম সপ্তাহ পেরিয়ে যাওয়ার পর, আপনি আপনার দ্বিতীয় ত্রৈমাসিকে  প্রবেশ করবেন, যা গর্ভাবস্থার সম্পূর্ণ পর্যায়কালের মধ্যে অপেক্ষাকৃতভাবে নিরাপদ পর্ব, তবে কোনো জটিলতা থাকলে নয়।দ্বিতীয় ত্রৈমাসিকে বমিভাব ও বমির সমস্যাগুলি চলে যায় এবং আপনি আরও বেশি স্বাচ্ছন্দ্য বোধ করেন ও আরামে থাকেন।    

তৃতীয় ত্রৈমাসিক তৃতীয় টায়ামিস্টারের সময়, আপনি প্রায় আপনার গর্ভাবস্থার পূর্ণ মেয়াদের কাছাকাছি পৌঁছে যান এবং চারিপাশে ঘুরে বেড়াতে আর অনেকক্ষণ ধরে বসে থাকতে আপনার কষ্ট হতে পারে। এই পর্যায়ে ভ্রমণ না করতে পরামর্শ দেওয়া হয়।   

গর্ভাবস্থার পর্যায়কাল জুড়ে দীর্ঘমেয়াদী ভ্রমণ এড়িয়ে চলুন  গর্ভাবস্থায় ভ্রমণ করার সিদ্ধান্ত আপনি কতটা স্বাচ্ছন্দ্যে আছেন তার উপর এবং আপনার চিকিৎসকের পরামর্শের উপর নির্ভর করে। দীর্ঘমেয়াদী ভ্রমণে যাওয়া বা উচ্চ অক্ষাংশে ভ্রমণ করা এড়িয়ে চলুন কারণ বেশি উচ্চতায় অক্সিজেনের কম পরিমাণ নিশ্বাসের কষ্টের কারণ হতে পারে। ভ্রমণে যাবার আগে এটি নিশ্চিত হোন আপনি স্বাচ্ছন্দ্যে ও আরামে আছেন।

ভ্রমণের সময় সুস্বাস্থ্যবিধি সংক্রান্ত পরামর্শগুলি

একজন গর্ভবতী মায়ের ক্ষেত্রে সুস্বাস্থ্যবিধির গুরুত্ব আরও বেশি করে সামনে চলে আসে। এখানে মনে রাখার জন্য কিছু গুরুত্বপূর্ণ বিষয় দেওয়া হল:

আপনার হাতগুলিকে পরিষ্কার রাখুন সংক্রমণ এড়িয়ে যাওয়ার জন্য সর্বদা একটি হ্যান্ড স্যানিটাইজার সাথে রাখবেন।

পানীয় জলের বিষয়ে নিশ্চিত হোনকোনো  জায়গায় ভ্রমণে যাওয়ার সময় সর্বদা আপনার নিজের জলের বোতল নিয়ে যাবেন বা মুখ বন্ধ করা মিনারেল ওয়াটার ব্যবহার করবেন যাতে এটি নিশ্চিত করা যায় যে আপনি আর্দ্র আছেন এবং জলবাহিত সংক্রমণ মুক্ত আছেন।  

জনসাধারণের টয়লেট ব্যবহার করাযদি আপনাকে জনসাধারণের টয়লেট ব্যবহার করতে হয়, এটি নিশ্চিত করুন যে সেগুলি পরিষ্কার, শুকনো ও আলোকিত আছে যা  পিছলে পড়ে যাওয়ার মাধ্যমে আঘাত না লাগে। যদি সেখানে অপসারণযোগ্য সিট কভার দেওয়া থাকে, তাহলে সেটিই বেছে নিন। সুস্বাস্থ্যবিধি মেনে চলুন যাতে আপনি সংক্রমিত না হন।  

ভ্রমণ করার যথার্থ পন্থা বেছে নেওয়া ।
আপনার উচিৎ আপনার ভ্রমণের মাধ্যমটি বিচক্ষণভাবে বেছে নেওয়া। সেটিকে বেছে নিন যাতে আপনি সবচেয়েও বেশি স্বাচ্ছন্দ্য বোধ করেন এবং কোনো অস্বস্তি ছাড়া আপনার যাত্রা সম্পূর্ণ করতে পারেন।  

সড়কপথে ভ্রমণ করা:সড়কপথে ভ্রমণ করলে আপনি পরিশ্রান্ত হয়ে যেতে পারেন। তাই, এমন একটি যান বেছে নিন যা যাত্রাপথের সময় কমায় তার সাথে সাথে আপনার যাত্রার চাপ কমিয়ে দেয়। রাস্তার উপর ঝাঁকুনি ও বাম্পের  জন্য বাসের তুলনায় গাড়়ি সবসময়েই ভালো, যদিও একটি গাড়ির মধ্যেও আপনাকে অবশ্যই সাবধানে থাকতে হবে। হঠাৎ করে আসা ঝাঁকুনি ও ঠেলা লাগা এড়িয়ে যাওয়ার জন্য আপনার সিট বেল্ট বেঁধে রাখুন। হঠাৎ  ব্রক কষার সময় আঘাত এড়িয়ে যেতে ড্যাশবোর্ড থেকে সুরক্ষিত দূরত্ব বজায় রাখুন। হঠাৎ ঝাঁকুনির ক্ষেত্রে আঘাতপ্রাপ্ত হওয়া এড়িয়ে যেতে সামনের সিট বাদ দিন।     

সুরক্ষিত সড়কপথে ভ্রমণের পরামর্শ ।

সিট বেল্ট:আপনার পেটের উপর অবাঞ্ছিত চাপ এড়িয়ে যাওয়ার জন্য সিট বেল্টটি নীচের দিকের পেটের কাছাকাছি পড়া উচিৎ।  

জল খাবার নেওয়া:প্রথম ত্রৈমাসিকের সময় যাত্রাপথে স্বাস্থ্যকর ও পুষ্টিকর জল খাবার বমিভাব প্রতিরোধ করতে সাহায্য করে ও আপনার শক্তির মাত্রা বজায় রাখে।  

আরাম করা:এটি নিশ্চিত করুন যে প্রতি এক বা দুঘন্টায় আপনি স্ট্রেচ করবেন যাতে শরীরে রক্ত সরবরাহ বজায় থাকে।

স্বাচ্ছন্দ্য:আপনার পিঠকে সহায়তা প্রদান করার জন্য ও একটি আরামদায়ক অবস্থানের জন্য একটি বালিশ বহন করা যেতে পারে।

চিকিৎসকের পরামর্শ:গর্ভাবস্থায় ভ্রমনে যাওয়ার আগে আপনার চিকিৎসকের সাথে আলোচনা করুন। আপনার চিকিৎসক এমন একজন মানুষ হবেন যিনি সিদ্ধান্ত নেবেন যে আপনি ভ্রমণের কথা চিন্তা করবেন কি করবেন না।   

রেলপথে ভ্রমণ করা।

সড়কপথে ভ্রমণ করা চেয়েও ট্রেনে যাত্রা অনেক বেশি সুরক্ষিত কারণ সেখানে হঠাৎ করে আসা   ঝাঁকুনি এবং ধাক্কার সম্ভাবনা অনেক কম।ঝাঁকুনি কম ও স্ট্রেচ করা ও শোওয়ার জন্য যথেষ্ট জায়গা থাকার ফলে, আপনি দূরত্ব বাড়াতে পারেন তার সাথে সাথে ভঙ্গীমা পাল্টাতে পারেন ও চারিপাশে ঘুরে বেড়াতে পারেন।     

আপনি এটি অবশ্যই নিশ্চিত করবেন যে দাঁড়ানো বা চারিপাশে হাঁটার সময় আপনি রেলিং ধরে থাকবেন। ট্রেনে ওঠা ও ট্রেন থেকে নামার সময় সাবধান হবেন আর ফুটবোর্ডে সতর্ক থাকবেন।

বায়ুপথে ভ্রমণ করা।

বায়ুপথে ভ্রমণ করা হল সবচেয়েও আরামদায়ক ও সুরক্ষিত পদ্ধতি। একটি করিডোরের সীট বেছে নিন যাতে আপনি স্ট্রেচ করতে পারেন আর নিজে আরামদায়ক বোধ করতে পারেন। যদিও উচ্চ অক্ষাংশে অক্সিজেনের পরিমাণ কমে যায়, তবুও আপনার চিন্তার কোনো কারণ নেই যেহেতু বিমানেরকেবিনগুলি অক্সিজেনপূর্ণ থাকে।     

32 সপ্তাহের পর বায়ুপত্রে ভ্রমণ করা এড়িয়ে চলুন।  

দ্রষ্টব্য: বায়ু পথে ভ্রমন  অনুচ্ছেদের সাথে যুক্ত করুন

সমুদ্রপথে ভ্রমণ করা।

গর্ভাবস্থায় সমুদ্রপথে ভ্রমণ সাধারণত নিরাপদ। এর একমাত্র খারাপ দিকটি হল এটি সি সিকনেসের ফলে বমিভাবের তীব্রতাকে বাড়িয়ে দেয়। একটি নৌকা বা ক্রুসে থাকার সময় এমন কিছু বিধিনিষেধ আছে যা আপনাকে অবশ্যই অবলম্বন করতে হবে:

ক্রুসের মাঝখানে একটি কেবিন নিন তাতে ঝাঁকুনি কম হবে।
সবসময় আপনার হাতের কাছে ওষুধ ও রিপোর্টগুলি রেখে দিন।
ক্রুসে হাইজিন ও সুরক্ষিত খাবারের সন্ধান করুন।
সর্বদা আপনার সাথে কিছু হালকা জলখাবার রাখুন।
ঘনঘন হালকা জলখাবার খান।
এটি নিশ্চিত করুন যে আপনার হাতের কাছে যেন অন্তত একটি প্রাথমিক চিকিৎসার সুযোগ থাকে বা কাছাকাছি যেন একটি যথার্থ চিকিৎসা পরিচর্যার সুযোগ থাকে।
গর্ভাবস্থায় একটি ক্রুজে থাকার সময় শৌচাগারের সুস্বাস্থ্যবিধি সুনিশ্চিত করুন কারণ এখানে সংক্রমণের ভয় অনেক বেশি।
আরও গুরুত্বপূ্র্ণভাবে, ভ্রমণে যাওয়ার আগে আপনার চিকিৎসকের পরামর্শ নিন।

 

সর্বোপরি, আপনি এটি অবশ্যই ভুলবেন না যে আপনি একা ঘুরছেন, এমনকি এক মিনিটের জন্যও নয়। আপনার সাথে সবসময় একজন সঙ্গী রয়েছে, সে আপনার থেকে আরও অনেক বেশি দূর্বল। তাই, গর্ভাবস্থায় ভ্রমণ করার সময় একজনের আরও বেশি সতর্কতা অবলম্বন করা উচিৎ।

English | Tamil | Hindi | Telugu | Bengali | Marathi

Read more

Join My First 1000 Days Club

It all starts here. Expert nutrition advice for you and your baby along the first 1000 days.

  • Learn about nutrition at your own paceLearn about nutrition at your own pace
  • toolTry our tailored practical tools
  • Enjoy member only benefits and offersEnjoy member only benefits

Let's start this!

Related Content
Article Reviews

0 reviews

Still haven't found
what you are looking for?

Try our new smart question engine. We'll always have something for you.